শাহবাগ প্রজন্ম চত্বরের আগুন এখন মন্ট্রিয়লে
সদেরা সুজন।, বুধবার, ফেব্রুয়ারি ১৩, ২০১৩


শাহবাগ প্রজন্ম চত্বরের আগুন এখন মন্ট্রিয়লে

সদেরা সুজন।।এ যেন এক অভূতপূর্ব অবিশ্বাস্য দৃশ্য। গতকাল দুপুর পর্যন্ত কষ্টের অন্তজ্বালায় দগ্ধ হচ্ছিলাম। বিশ্বের শহরে শহরে শাহবাগের প্রজন্ম চত্বর থেকে আগুন ছড়িয়ে পড়েছে সর্বত্র অথচো মন্ট্রিয়ল নিরব। না রাতেই ফেবু ব্লগার সুপ্তা করের মাধ্যমে জানলাম মন্ট্রিয়লের মানুষ জেগে উঠেছে। সত্যিই অবাক হবার দৃশ্য মাত্র কয়েক ঘন্টার প্রচারে আজ শাহবাগের ডাকে যে প্রতিবাদ সভা হলো তা সত্যিই অবিশ্বাস্য। শৈত প্রবাহের তান্ডবতা, পরদিন কর্মদিবস হলেও তাতে যায় আসে কি? এ যেন মানুষের বাঁধ ভাঙ্গা জোয়ার।মন্ট্রিয়লে আবালবৃদ্ধবণিতা সবাই এসে সমবেত হয়েছে, শ্লোগানে শ্লোগানে মুখরিত, দেশাত্ববোধক গানের জাগনিয়া প্রতিবাদ যুদ্ধাপরাধী কসাই কাদের মোল্লাসহ সকল যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসি চাই। শাহবাগ প্রজন্ম চত্বরে থাকতে পারিনি তাতে কি? এ যোনো আমার প্রাণের শাহবাগ চত্বরের প্রজন্মের উন্মাতাল জনস্রোতের আকাশ ভাঙ্গা বজ্রাঘাতের গগণবিধারী শ্লোগানের স্পর্শ। ‘কসাই কাদের মোল্লাসহ সকল যুদ্ধাপাধীদের ফাঁসি চাই’ ঢাকার শাহবাগের প্রজন্ম চত্বরের আলোকে প্রতিবাদ সমাবেশ ও প্রদীপ প্রজ্জ্বলনের আয়োজন করেছিলো উদীচী শিল্পী গোষ্ঠী মন্ট্রিয়ল। উদীচী আয়োজন করলেও মন্ট্রিয়লের বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ, মুক্তিযোদ্ধা, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব, সাংবাদিকরাসহ মন্ট্রিয়ল প্রবাসীদের প্রতিবাদি সভায় পরিনত হলো। বসার জায়গা নেই, তিল ধারনের ঠাঁই ছিলোনা তাতে কিইবা যায় আসে! মন্ট্রিয়লের স্থানীয় শিল্পীদের বিরতিহীন দেশাত্ববোধক গান আর মূহ মূহ ম্লোগানের এমন স্বতস্ফূর্ত প্রতিবাদ সভা ছিলো যা প্রবাসীদের রক্তে শাহবাগের আগুন ছড়িয়ে পড়েছিলো সর্বত্র।অগ্নিস্ফূলিংগের মতো ছড়িয়ে পরেছে শুধু একটি শ্লোগান যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসি চাই।

গতকাল মন্ট্রিয়লের মেকগীল ইউনির্ভাসিটি বাংলাদেশী ছাত্র পরিষদ একই দাবিতে মানববন্ধন। আজ উদীচী প্রতিবাদ সভা ছিলো। আগামীকাল থেকে ধারাবাহিকভাবে প্রায় প্রতিদিনই বিভিন্ন সংগঠনের আয়োজনে শাহবাগের আগুন ছড়িয়ে দেওয়ার কর্মসূচি গ্রহন করা হয়েছে।