ভিএজি,বির দ্বি-বর্ষপূর্তিঃ সুধীসমাবেশ ও সাংস্কৃতিক সন্ধ্যা
এইদেশ ডেস্ক-, সোমবার, জুন ২৪, ২০১৩


ভিএজি,বির দ্বি-বর্ষপূর্তিঃ সুধীসমাবেশ ও সাংস্কৃতিক সন্ধ্যা

ভয়েস ফর একাউন্ট্যাবিলিটি এন্ড গুড গভার্নেন্স ইন বাংলাদেশ – ভিএজি,বির দ্বিতীয় বর্ষপূর্তি উপলক্ষ্যে ২৩ জুন ২০১৩ রোববার মন্ট্রিয়ল নগরীর ৬৯৭-৬৭৬৭ কোট দ্য নেইজ মিলনায়তনে এক সুধী সমাবেশ ও সাংস্কৃতিক সন্ধ্যার আয়োজন করা হয়। সংগঠনের আহবায়ক শাহ মোস্তাইন বিল্লাহর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এই সমাবেশে অংশগ্রহণ করেন ভিএজি,বি সদস্য অধ্যাপক আবুল আলম, অধ্যাপক আনন্দ মোহন দাস, সমর দেব, সিবিএস সভাপতি ও মন্ট্রিয়ল গণজাগরণ মঞ্চের সদস্য-সচিব জিয়াউল হক জিয়া, ভিএজি,বি সদস্য দিলীপ কর্মকার, অধ্যাপক বিদ্যুত ভৌমিক, ডঃ নাসরীন সুলতানা, ডঃ শোয়েব সাঈদ, সাংবাদিক ও লেখক তাজুল মোহাম্মদ, সাংবাদিক সদেরা সুজন, সঙ্গীত শিক্ষক শফিউল ইসলাম, সিবিএস উপদেষ্টা মুস্তাফিজুর রহমান ফিরোজ, জাতীয়তাবাদী স্বেচ্ছাসেবক দল কানাডা শাখার সভাপতি আবুল বাশার মানিক, জিয়া পরিষদ কানাডা শাখার নেতা কাজী শাহজাহান কবির সাজু, বিশিষ্ট গিটারিস্ট ইয়াসির ইমরান হায়দার (কলিন), সঙ্গীত শিল্পী সন্ধ্যা দেব (লক্ষ্মী), ইন্দ্রাণী রায় চৌধুরী, ভিএজি,বি সদস্য আরিয়ান হক, ইঞ্জিনিয়ার মোহাম্মদ তোফাজ্জল হোসেন পরাগ, তানহা তাবাসসুম নুন্না, জাহাঙ্গীর আলম, আবু জহির, আশরাফুল কবির, ফাহিম হক প্রত্যয় ও জারিন হক প্রিয়াম।
সমাবেশের শুরুতে শাহ মোস্তাইন বিল্লাহ সংক্ষিপ্তভাবে বিগত দুই বছরের সাংগঠনিক কার্যক্রম তুলে ধরে বলেন, বাংলাদেশকে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাভিত্তিক গণতান্ত্রিক, ধর্মনিরপেক্ষ ও জবাবদিহিমূলক রাষ্ট্র হিসেবে গড়ে তোলার পক্ষে গণসচেতনতা বৃদ্ধি ও জনমত গঠনের জন্য ভিএজি,বি কাজ করে যাচ্ছে। দেশে সুশাসন প্রতিষ্ঠার স্বার্থে রাজনীতির নামে ধর্মের বেসাতি বন্ধ করা; যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করা; রাজনৈতিক দলগুলির নেতৃত্বনির্বাচন প্রক্রিয়াকে গণতন্ত্রসম্মত করা ও লিডারশীপ ডিবেটের মাধ্যমে যোগ্য ও সৎ নেতৃত্ব সৃষ্টির পথ উন্মুক্ত করা; রাজনীতিতে কালো টাকার প্রভাব রোধকল্পে রাজনৈতিক দলগুলিকে রাষ্ট্রীয় কোষাগার থেকে অর্থের যোগান দেয়া ও কঠোরভাবে আর্থিক লেনদেনের বিষয়টি অডিট করা; নির্বাচন কমিশন, দুর্নীতি দমন কমিশন, মানবাধিকার কমিশন, পাবলিক সার্ভিস কমিশন প্রভৃতি প্রতিষ্ঠানকে স্বাধীনভাবে কাজ করার সাংবিধানিক অধিকার প্রদান করা; সংসদীয় কমিটিগুলির ক্ষমতা ও কার্যপরিধিকে বিস্তৃত করা; সংসদীয় কমিটিগুলিতে পাবলিক হিয়ারিংয়ের মাধ্যমে সাংবিধানিক পদসমূহের নিয়োগ চূড়ান্ত করা; জাতীয় সংসদ সদস্যদের একটানা ৯০টি কার্যদিবস পর্যন্ত সংসদীয় কার্যক্রমে অনুপস্থিত থাকার বর্তমান সুযোগ কমিয়ে তা সর্বোচ্চ ১০টি কার্যদিবসে সীমাবদ্ধ করা ইত্যাদি বিষয়ে দেশে বিদেশে বাংলাদেশী জনগোষ্ঠীর মাঝে জনমত সৃষ্টি করাই ভিএজি,বির লক্ষ্য। তিনি বলেন, এই লক্ষ্য অর্জনের জন্য প্রয়োজন সুদীর্ঘ ও নিরবিচ্ছিন্ন প্রচেষ্টার। বাংলাদেশে বর্তমানে যে অসুস্থ রাজনৈতিক সংস্কৃতি জাতির ভবিষ্যতকে অনিশ্চিত করে তুলেছে সেই অপসংস্কৃতি স্থলে একটি সুস্থ ও নিয়মতান্ত্রিক ধারা আমাদেরকে সৃষ্টি করতেই হবে। অত্যন্ত প্রাণবন্ত ও হৃদ্যতাপূর্ণ পরিবেশে অনুষ্ঠিত এই অনুষ্ঠানে অতিথি বক্তাগণ ভিএজি,বির কার্যক্রমের প্রশংসা করেন এবং এই সংগঠনের উত্তরোত্তর সফলতা কামনা করেন।
দ্বিতীয় পর্বে পরিবেশিত হয় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। সঙ্গীত পবিরেশন করেন শফিউল ইসলাম, সন্ধ্যা দেব (লক্ষ্মী), তানহা তাবাসসুম নুন্না ও আরিয়ান হক। গীটার ও তবলায় ছিলেন যথাক্রমে ইয়াসির ইমরান হায়দার (কলিন) ও শঙ্কর রায় চৌধুরী। এছাড়াও অনুষ্ঠানে কবিতা পাঠ করেন দিলীপ কর্মকার, নাসরীন সুলতানা ও শাহ মোস্তাইন বিল্লাহ।