রায়ে বিচারকদের সুবিবেচনা প্রতিফলিত হয়েছে
এইদেশ ডেস্ক-, মঙ্গলবার, জুলাই ১৬, ২০১৩


আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে যুদ্ধাপরাধী গোলাম আযমের বিরুদ্ধে রায় ঘোষণার পর তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় ভয়েস ফর একাউন্ট্যাবিলিটি এন্ড গুড গভার্নেন্স ইন বাংলাদেশ – ভিএজি,বি আহবায়ক শাহ মোস্তাইন বিল্লাহ বলেছেন, আদালতের এই রায় হয়তো একাত্তরে স্বজনহারানো সংক্ষুব্ধ জনগোষ্ঠীর প্রত্যাশা পুরোপুরি পূরণ করতে পারে নি; তবে রায়টিতে সন্দেহাতীতভাবে বিচারকদের সুবিবেচনা প্রতিফলিত হয়েছে। রায়ে গোলাম আযমকে তার কৃত অপরাধের জন্য দোষী সাব্যস্ত করা হয়েছে এবং তার শাস্তি যে মৃত্যুদণ্ড হওয়া উচিত সেটিও বিচারকগণ সুস্পষ্টভাবে উল্লেখ করেছেন। কিন্তু তার বয়স ও স্বাস্থ্যগত দিকটি বিবেচনায় আনা হয়েছে মানবিক দৃষ্টিকোন থেকে। ৯০ বছরের এই বৃদ্ধ অপরাধীর জন্য মৃত্যুদন্ড ও ৯০ বছর মেয়াদী কারাদন্ডের মাঝে বাস্তবে কোনো পার্থক্য নেই। কেননা কৃত অপরাধের জন্য শাস্তি ভোগ করতে করতে কারাগারেই তাকে মৃত্যুবরণ করতে হবে। তবে ভবিষ্যতে কোনো পরিবর্তিত রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে তিনি জামিনে মুক্তি পেলে সেটি হবে জাতির জন্য সবচেয়ে দুর্ভাগ্যজনক। এই রায়টির আরো একটি বিশেষত্ব হলো যে উত্থাপিত পাঁচটি অভিযোগের সবগুলিতেই গোলাম আযম দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন। এক্ষেত্রে প্রসিকিউশন টিম যে পেশাগত দক্ষতা দেখিয়েছেন তা প্রশংসনীয়।

জনাব বিল্লাহ আরো বলেন, এটি খুবই পরিতাপের বিষয় যে যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের প্রশ্নে জাতির বৃহত্তর অংশের মাঝে ঐকমত্য থাকলেও দেশের রাজনৈতিক দলগুলি এই ইস্যুতে একমত হতে পারে নি। আমরা আশা করবো অন্তত মুক্তিযুদ্ধ, যুদ্ধাপরাধীদের বিচার, সংসদীয় গণতান্ত্রিক সংস্কৃতি, আইনের শাসন, দুর্নীতি দমন প্রভৃতি জাতীয় স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিষয়ে রাজনৈতিক দলগুলি অভিন্ন অবস্থান গ্রহণ করে দেশপ্রেম ও দায়িত্বশীলতার পরিচয় দেবেন।