বাংলাদেশ গ্রেজুয়েট স্টুডেন্ট সোসাইটি অব ম্যাগগিল ইউনির্ভাসিটি এর উদ্যোগে ভ্যালেরী এন টেলরকে সংবর্ধনা
এইদেশ ডেস্ক-, সোমবার, সেপ্টেম্বর ৩০, ২০১৩




বাংলাদেশ গ্রেজুয়েট স্টুডেন্ট সোসাইটি অব ম্যাগগিল ইউনির্ভাসিটি
এর উদ্যোগে ভ্যালেরী এন টেলরকে সংবর্ধনা
বাংলা কাগজ: পঙ্গুত্বের অভিশাপ হতে মুক্ত করে হাজার হাজার নর-নারী ও শিশু কিশোরকে নতুন জীবন দান করে চলেছেন এক মহিয়সী নারী। বৃটিশ বংশোদ্ভূত মিস ভ্যালেরী এন টেলর ১৯৭৯ সাল হতে বাংলাদেশে পক্ষাঘাতগ্রস্ত্ম মানুষগুলোকে আধুনিক চিকিৎসার মাধ্যমে নতুন জীবন দান করে চলেছেন। ভ্যালেরী অত্যন্ত সুক্ষ সুনিপুনভাবে প্যারালাইজড রুগীদের সেবা-চিকিৎসা এবং বিভিন্ন শিক্ষায় ও প্রশিক্ষণের মাধ্যমে পুনর্বাসন ও কর্মক্ষম করে তুলেছেন। তিনি সেন্টার ফর রিহেবিলিটেশন অব দ্য পেরালাইজড (সি.আর.পি.) এর প্রতিষ্ঠাতা এবং প্রধান নির্বাহী হিসাবে ৩৪ বছর ধরে বাংলাদেশে কাজ করে যাচ্ছেন। গত ২৩ সেপ্টেম্বর, সোমবার সন্ধ্যা ৬ টায় ম্যাকগিল বিশ্ববিদ্যালয়ের থমসন বিল্ডিং এর হল রুমে বিজিএসএস-ম্যাকগিল এর উদ্যোগে সি.আর.পি বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান সমন্বয়কারী ভ্যালেরী টেলরকে সংবর্ধনা দেয়া হয়। আর্ত মানবতার নিঃস্বার্থ সেবক ভ্যালেরী টেলরের সঙ্গে মত বিনিময়ের মাধ্যমে প্রবাসী বাংলাদেশী ছাত্র-ছাত্রীরা দেশের দুস্থ জনগোষ্ঠীর মাঝে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেবে এবং প্রবাস হতে বাংলাদেশের জন্য নিঃস্বার্থ কাজ করার উৎসাহ পাবে এর জন্যই এ অনুষ্ঠানের আয়োজন। এ মহতী উদ্যোগের অনুষ্ঠানটি স্পন্সর করেন বাংলাদেশের খ্যতিমান ব্যাবসায়ী বীর মুক্তিযোদ্ধা কর্ণেল (অব:) জনাব দিদার এ হোসাইন। বিজিএসএস এর সভাপতি ফাইয়াজ জামাল এর শুভেচ্ছা বক্তব্যের মাধ্যমে অনুষ্ঠানের সূচনা হয়। সভাপতি ফাইয়াজ সংগঠনের বিগত কিছু কর্মসূচীর আলোকপাত করেন এবং স্থির চিত্র প্রদর্শন করেন। ম্যাকগিল ষ্টুডেন্ট সোসাইটির পক্ষ হতে বাংলা নববর্ষ, ভাষা দিবস ও জাতীয় অনুষ্ঠান সমুহের বর্ণনা করেন। রানা পস্নাজায় ক্ষতিগ্রস্ত্ম দুস্থ শ্রমিকদের জন্য বিজিএসএস এর সদস্যরা ১৩ হাজার ডলার সংগ্রহ করে বাংলাদেশে প্রেরণের কথাও উলেস্নখ করে। স্পন্সর কর্ণেল (অব:) দিদার এ হোসেন- ভ্যালেরী টেলরের কার্যক্রম বাংলাদেশের জন্য এক বিরল ইতিবাচক মানবসেবা মূলক শ্রেষ্ঠ সংগঠন (সি.আর.পি.) হিসেবে চিহ্নিত হয়েছে বলে উলেস্নখ করেন। তিনি আশা প্রকাশ করেন সি.আর.পি'র কার্যক্রম ও সেবাসমুহ উপলদ্ধি করে উপস্থিত সকল ছাত্র-ছাত্রী ও অভিভাবকগণ বাংলাদেশের যে কোন দূর্যোগে সব সময় এগিয়ে আসবে। ভ্যালেরী টেলর- দীর্ঘ আলোচনায় প্রজেক্টরের মাধ্যমে ছবি প্রদর্শন করার সাথে তার মর্ম ও বিষয়গুলো উপস্থিত সকলকে বর্ণনা করেন। তিনি বলেন মাত্র ৩ জন রোগী নিয়ে ঢাকা মেডিকেল কলেজের সিমেন্টের গুদামে কার্যক্রম শুরু করেন এবং অল্প কয়েক বছরের মধ্যে সাভারে ২৫ একর জমির উপর নিজস্ব সি.আর.পি কমপেস্নঙ্ গড়ে তুলেন। হাসপাতাল, হোষ্টেল, প্রশিক্ষণ কেন্দ্র কারখনাসহ বহু বিভাগে সজ্জিত সি.আর.পি আজ বাংলাদেশের প্রায় ৮টি শহরে নিজস্ব ভবনে কার্যক্রম চালু করেছে। কানাডা সি.আর.পি প্রধান ক্যারোলিন স্কট বলেন, শুধু রানা পস্ন্লাজার মতো দূর্ঘটনা নয়। প্রতিদিন বাংলাদেশে সড়ক দূর্ঘটনায় বহু লোক আহত হচ্ছে, গ্রামে-গঞ্জে বহু ক্ষেত মজুর, কারখানার শ্রমিক, পেরালাইজড্‌ হচ্ছে- তাদের জন্য সি.আর.পি. কাজ করে যাচ্ছে। দরিদ্র, অবহেলিত, স্বল্প আয়ের জন মানুষের সেবার জন্য সি.আর.পি.-এর পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে কার্যক্রম চালু রয়েছে। তিনি প্রবাসী বাংলাদেশী বিত্তবান সকলকে এগিয়ে আসার জন্য আহ্বান জানান এবং অল্প কিছু সাহায্যের মাধ্যমে একটি বিশাল জনগোষ্ঠীর উপকারিতার সফল বয়ে আনবে বলে আহ্বান জানান। বিজিএসএস এর সাধারণ সম্পাদক উম্মে তামিমা ফুলের তোড়া দিয়ে মিস ভ্যালেরীকে বরণ করে নেন। বাংলাদেশ গ্রেজুয়েট স্টুডেন্ট সোসাইটি অব ম্যাকগীল ইউনিভার্সিটির কার্যকরী কমিটির মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- সভাপতি ফাইয়াজ জামান, সাধারণ সম্পাদক উম্মে তামিমা, অর্থ সম্পাদক গোলাম কিবরিয়া, যোগাযোগ সম্পাদক আসিফ ইকবাল, আপ্যায়ন সম্পাদক নাজমুল আহসান, সাংস্কৃতিক সম্পাদক নুর-ই-তামান্নাহ্‌, ক্রীড়া সম্পাদক আতানু চৌধুরী। অনুষ্ঠানে প্রবাসী ছাত্র-ছাত্রী, বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, সাংবাদিক সহ বহু গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। সি.আর.পি. বাংলাদেশ সম্পর্কে জানার জন্য ক্লিক করুণ


বি,জি,এস,এস,